‘বিসমিল্লাহ্‌’ মানে কি এটা কি আমরা জানি ?

প্রবন্ধটি পড়া হলে, শেয়ার করতে ভুলবেন না
রহমান রহীম আল্লাহ্‌ তায়ালার নামে-
ইসলাম যে কত সুন্দর আর ইসলামের জ্ঞানে যে কত গভীর তাৎপর্য ও সৌন্দর্য আছে এটা আমরা অনেকেই জানি, কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উপলব্ধি করে উঠতে পারিনা।কারণটা অনেকক্ষেত্রেই ইলম শিক্ষায় সময় বের করতে নিজের অনাগ্রহ এবং আগ্রহ থাকলেও দ্বীনের ইলম কার কাছ থেকে নিচ্ছি সেটার উপর নির্ভর করে পুরোপুরি।
শাইখ আহমাদ মুসা জিবরীল তাওহীদ-১ লেকচারে মিনিট পাঁচেক “বিসমিল্লাহ্‌”র অন্তর্নিহিত তাৎপর্য নিয়ে কিছু কথা বলেছেন।এই সামান্য জ্ঞানটাও যদি আমরা কাজে লাগাতে পারি তাহলে আমার বিশ্বাস এটা একটা “Lifetime Achievement”!বাহুল্য কাজ কিংবা ভালো কাজে না চাওয়া সত্ত্বেও লোকদেখানো মনোভাব থেকে মুক্ত হয়ে আমরা বুঝতে পারবো যে সিরাতুল মুস্তাকিমে থাকা আসলেই অনেক সহজ আলহামদুলিল্লাহ্‌ ! তাই শাইখের লেকচার থেকে কিছুটা আপনাদের জানানোর চেষ্টা করলামঃ
বিসমিল্লাহ্‌ এসেছে “বাসমালাহ” থেকে। তাওহীদের সকল দিকই (aspects) এই “বিসমিল্লাহ”র মধ্যে পরিস্ফুটিত হয়।তাওহিদ উল উলুহিয়্যাহ ,তাওহিদ উর রুবুবিয়া এবং তাওহিদ আসমা ওয়াসসিফাত এই তিনটাই। নিচের তিনটা পয়েন্টে আমরা দেখে নিই যে তাওহীদের এই aspect গুলো আসলে কি বোঝাচ্ছে-
প্রথমত, বিসমিল্লাহ্‌ বলে কোন কাজ শুরু করা মানেই এই সাক্ষ্য দেয়া যে আল্লাহ্‌ই আমাকে এই কাজ করার অনুমতি দিয়েছেন,যদি এই কাজে আল্লাহর সায় না থাকতো আমি কখনোই এ কাজ করতে পারতাম না।হে আল্লাহ্ একমাত্র তোমার সন্তুষ্টির (Only for your sake) জন্যই এ কাজটা করছি।
কেউ কখনো হারাম কাজ করতে গিয়ে বিসমিল্লাহ্‌ বলতে পারেনা।যদি বলে সে আসলে দ্বিগুণ গুনাহ করছে।কারণ, সে যখন বলে বিসমিল্লাহ্‌ সে তখন সাক্ষ্য দিচ্ছে যে আল্লাহ্‌ই তাকে এ কাজ করার অনুমতি দিয়েছেন অতচ আল্লাহ্‌ কখনোই সে কাজের বৈধতা দেননি।এটা হল একটা গুনাহ আর দ্বিতীয়টা হল ওই হারাম কাজের গুনাহ ।
এই ধারণাই হল তাওহীদ উল উলুহিয়্যাহ।
দ্বিতীয়ত, যখন আমরা কোন একটা জিনিস লিখি বা করি আমাদের মনে এই প্রশ্নটা আসা উচিৎ যে এই আমি লিখছি কে আমাকে এই লিখার ক্ষমতা দিল?এ কাজ করার ক্ষমতা আমায় কে দিয়েছেন?- আল্লাহ্‌ই আমাকে দিয়েছেন এই ক্ষমতা।তাই যখন আমরা বলি বিসমিল্লাহ্‌ তখন আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি “I couldn’t have done this without the power Allah has given me, Bismillah I am doing this by the power Allah has given it. Bismillah I eat because Allah has given me this provision and had it not been for the power Allah has given me I wouldn’t be able to chew it. Bismillah I write because if it wasn’t for Allah given me the power my hand wouldn’t be able to move”
এটা বলা আসলে “লা হাওলা ওয়ালা কুউওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ”বলার মত মানে “If it was not for his power I wouldn’t have done this act” এজন্যই আল্লাহ্‌ বলছেন “Every provision you have is from Allah”
এটা হল তাওহীদ আররুবুবিয়্যাহ।
তৃতীয়ত,বিসমিল্লাহ্‌ বলা মানে “Seeking Blessing by the name of Allah.You are using the name of Allah to Bless whatever you are doing.” অর্থাৎ আল্লাহ্‌র নামকে ব্যবহার করে যেই কাজটা আমরা করবো সেটার জন্য বরকত চাওয়া।আর এই ধারনাটাই হল তাওহীদ আসমা ওয়াস সিফাত।
['বিসমিল্লাহ'র এই ব্যাখ্যাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, তাই সম্ভবহলে অন্যদের কাছেও এই জ্ঞান পৌঁছে দিন:Both Online & Offline]
লেখাটি সংগ্রহ করা হয়েছে “ঈনসাফ” এর ব্লগ থেকে।

Post Your Comment

Thanks for your comment